প্রবাসের খবর -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
বৃটিশ সাংবাদিককে টিউলিপের হুমকি, বৃটেন জুড়ে নিন্দার ঝড়

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন করায় এক বৃটিশ সাংবাদিককে হুমকি এবং অশ্রাব্য ভাষায় কথা বলে সমালোচনার ঝড় তোলেছেন যুক্তরাজ‌্যের লেবার দলীয় এমপি এবং বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাগ্নি টিউলিপ সিদ্দিক। বুধবার দ্য টেলিগ্রাফে প্রকাশিত খবরে এ কথা বলা হয়।

লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড এলাকায় ইরানে আটক এক বৃটিশ মহিলার পক্ষে প্রচারণা চালানোর সময় টিউলিপের সাক্ষাতকার নিতে যান যুক্তরাজ্যের জনপ্রিয় গণমাধ্যম চ্যানেল ফোর এর সাংবাদিক ডেইজি। ২০১৬ সালে বাংলাদেশে গুম হওয়া বৃটেন থেকে ব্যারিস্টার ডিগ্রি সম্পন্ন করা এক নাগরিকের মুক্তির ব্যাপারে টিউলিপ কোন ভূমিকা রাখতে পারবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকের ওপর ক্ষেপে উঠেন তিনি।

ডেইজিকে সতর্ক করে দিয়ে টিউলিপ বলেন, আমি হ্যাম্পস্টেড এবং কিলবার্ন এর এমপি, ব্রিটিশ পার্লামেন্টের একজন সদস্য। খুবি সতর্ক থাকবেন।
তিনি বাংলাদেশি নাগরিক নন উল্লেখ করে টিউলিপ আরো বলেন, আমি বাংলাদেশের নাগরিক না। আর আপনি যে ব্যক্তির কথা বলছেন তার মামলা সম্পর্কে আমি জানি না।এখানেই আমার কথা শেষ।

উল্লেখ্য ২০১৬ সালে জামায়াতে ইসলামী নেতা মীর কাসেম আলীর ছেলে আহমেদ বিন কাসেমকে গুম করা হয় তার বাসা থেকে। তিনি সরকারের আইনশৃঙ্খলাবাহিনী কর্তৃক গুম হয়েছেন বলে দাবি করে আসছে মানবাধিকার সংস্থাগুলো।

শুধু তাই নিয়ে এর কিছুক্ষণ পরই বৃিটিশ সাংবাদিকের মাতৃত্ব নিয়েও কটাক্ষ করেন টিউলিপ। সাংবাদিক অ্যালেক্স থমসন ঘটনাটি প্রসঙ্গে বলেন, ক্যামেরা থেকে একটু দূর হেঁটেই টিউলিপকে বলতে শোনা যায়, এখানে আসার জন্য ডেইজিকে ধন্যবাদ। আশা করি তোমার ভালো একটা বাচ্চা হবে, কারণ সন্তানের মাতৃত্বের বিষয়টা খুবি কঠিন কাজ।

বিষয়টি নিয়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে সংবাদ মাধ্যমসহ সামাজিক যোগােযাগ সাইটগুলোতেও। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যারা এটা দেখেছেন তারা বিষয়টিকে উদ্ভট এবং অশোভন আচরণ বলে মন্তব্য করেছেন।
সাংবাদিক থমসন এ ব্যাপারে বলেছেন, প্রশ্নের উত্তরে কোন এমপিকে খুব সতর্ক থাকবেন এমন কথা বলা আমার সাংবাদিকতার ৩০ বছরেও দেখিনি।

 

বৃটিশ সাংবাদিককে টিউলিপের হুমকি, বৃটেন জুড়ে নিন্দার ঝড়
                                  

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন করায় এক বৃটিশ সাংবাদিককে হুমকি এবং অশ্রাব্য ভাষায় কথা বলে সমালোচনার ঝড় তোলেছেন যুক্তরাজ‌্যের লেবার দলীয় এমপি এবং বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাগ্নি টিউলিপ সিদ্দিক। বুধবার দ্য টেলিগ্রাফে প্রকাশিত খবরে এ কথা বলা হয়।

লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড এলাকায় ইরানে আটক এক বৃটিশ মহিলার পক্ষে প্রচারণা চালানোর সময় টিউলিপের সাক্ষাতকার নিতে যান যুক্তরাজ্যের জনপ্রিয় গণমাধ্যম চ্যানেল ফোর এর সাংবাদিক ডেইজি। ২০১৬ সালে বাংলাদেশে গুম হওয়া বৃটেন থেকে ব্যারিস্টার ডিগ্রি সম্পন্ন করা এক নাগরিকের মুক্তির ব্যাপারে টিউলিপ কোন ভূমিকা রাখতে পারবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকের ওপর ক্ষেপে উঠেন তিনি।

ডেইজিকে সতর্ক করে দিয়ে টিউলিপ বলেন, আমি হ্যাম্পস্টেড এবং কিলবার্ন এর এমপি, ব্রিটিশ পার্লামেন্টের একজন সদস্য। খুবি সতর্ক থাকবেন।
তিনি বাংলাদেশি নাগরিক নন উল্লেখ করে টিউলিপ আরো বলেন, আমি বাংলাদেশের নাগরিক না। আর আপনি যে ব্যক্তির কথা বলছেন তার মামলা সম্পর্কে আমি জানি না।এখানেই আমার কথা শেষ।

উল্লেখ্য ২০১৬ সালে জামায়াতে ইসলামী নেতা মীর কাসেম আলীর ছেলে আহমেদ বিন কাসেমকে গুম করা হয় তার বাসা থেকে। তিনি সরকারের আইনশৃঙ্খলাবাহিনী কর্তৃক গুম হয়েছেন বলে দাবি করে আসছে মানবাধিকার সংস্থাগুলো।

শুধু তাই নিয়ে এর কিছুক্ষণ পরই বৃিটিশ সাংবাদিকের মাতৃত্ব নিয়েও কটাক্ষ করেন টিউলিপ। সাংবাদিক অ্যালেক্স থমসন ঘটনাটি প্রসঙ্গে বলেন, ক্যামেরা থেকে একটু দূর হেঁটেই টিউলিপকে বলতে শোনা যায়, এখানে আসার জন্য ডেইজিকে ধন্যবাদ। আশা করি তোমার ভালো একটা বাচ্চা হবে, কারণ সন্তানের মাতৃত্বের বিষয়টা খুবি কঠিন কাজ।

বিষয়টি নিয়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে সংবাদ মাধ্যমসহ সামাজিক যোগােযাগ সাইটগুলোতেও। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যারা এটা দেখেছেন তারা বিষয়টিকে উদ্ভট এবং অশোভন আচরণ বলে মন্তব্য করেছেন।
সাংবাদিক থমসন এ ব্যাপারে বলেছেন, প্রশ্নের উত্তরে কোন এমপিকে খুব সতর্ক থাকবেন এমন কথা বলা আমার সাংবাদিকতার ৩০ বছরেও দেখিনি।

 

মালয়েশিয়ায় তারেক রহমানের জন্মদিন পালন
                                  

তারেক রহমানের ৫৩তম জন্মদিন পালন করেছে মালয়েশিয়া যুবদল। শনিবার বিকেলে কুয়ালালামপুর আমপাং পয়েন্ট হোটেলে এ আয়োজন করা হয়।

মালয়েশিয়া যুবদলের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম খানের সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন সাগরের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন মালয়েশিয়া বিএনপির সভাপতি বাদলুর রহমান খান।

বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য মো. মোশারফ হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিবুর রহমান রতন, যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রমজান আলী। আরও উপস্থিত ছিলেন মালেয়শিয়া বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি ও কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি মাহবুব আলম শাহ।

হাজী জাকির, আব্দুর রউফ লিটন, যুগ্ম সম্পাদক ওয়ালী উল্লাহ জাহিদ, এস এম জাহাঙ্গীর, সিরাজুল ইসলাম মাহুমুদ, প্রচার সম্পাদক এস এম বশির আলম, দফতর সম্পাদক আমিনুল ইসলাম রতন, প্রকাশনা সম্পাদক মামুন বিন আব্দুল মান্নান, সহ-দফতর সম্পাদক হাবিবুর রহমান শিশির, সহ-অর্থ সম্পাদক আবুল কালাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আজিজ, মজনু মুনসী, জসিম, আনোয়ার হোসেন সেলিম, সবুজ ইকবাল, ইসমাইল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ছাত্রনেতা আসাদুজ্জামান রিপন, যুবদল নেতা সরদার মুনছুর, আলভী, তুহিন শেখ, ঢাকা কলেজের সাবেক ছাত্রদল নেতা লিটন, মুক্তেযোদ্ধা প্রজন্ম দলের সভাপতি বাদল। কোরআন তেলোওয়াত ও মোনাজাত পরিচালনা করেন দেলোয়ার হোসেন।

কুয়ালালামপুরে পুলিশি অভিযানে ৬০ বাংলাদেশি আটক
                                  

মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরের সর্ববৃহৎ গার্মেন্টস সামগ্রীর পাইকারী মার্কেট হাংতুয়া কেনাঙ্গা হোলসেল সিটিতে বুধবার অভিযান চালানো হয়। এসময় প্রায় ৬০ বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের প্রায় শতাধিক অভিবাসী শ্রমিককে গ্রেফতার করা হয়।

মার্কেটে কর্মরত বাংলাদেশি শ্রমিকরা জানান, স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় হঠাৎ করেই সাদা পোশাকের ইমিগ্রেশন, পুলিশসহ যৌথ বাহিনীর সদস্যরা মার্কেটে ঢুকে কাগজপত্র চেক করতে শুরু করে। এসময় পুরো মার্কেট জুড়ে আতঙ্ক শুরু হয়ে যায়। ২টা পর্যন্ত চলে এ অভিযান। কাগজপত্র চেক করে সেখানে কর্মরত প্রায় ৬০জন বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের প্রায় শতাধিক শ্রমিককে আটক করা হয়।

কেনাঙ্গা হোলসেল সিটিতে কর্মরত নোয়াখালী কোম্পানীগঞ্জের পিয়াস মাহমুদ এই প্রতিনিধিকে জানান, আটক বাংলাদেশিদের অনেকরই কাগজপত্র ছিল। তা স্বত্ত্বেও যৌথবাহিনী তাদের আটক করে নিয়ে যায়। কারণ তারা এখানে বিভিন্ন মালিকের দোকানে কাজ করলেও তাদের বৈধ কাগজপত্র ও চলমান বৈধকরণ প্রক্রিয়া মাই-ইজি ও ই- কার্ড করা ছিল অন্য মালিকের নামে।

 

মালয়েশিয়ায় বোমা বিস্ফোরণে এক বাংলাদেশি নিহত
                                  

বন্দর মালয়েশিয়া কন্সট্রাকশান সাইটে পুরনো বোমা বিস্ফোরণে এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। এক বিবৃতিতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এমএমসি গোমুদা কিউএমআরটি এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

উল্লেখ্য, গতকাল মঙ্গলবার রাজধানী কুয়ালালামপুরের নিকটবর্তী বন্দর মালয়েশিয়ার একটি এমআরটি নির্মাণের স্থানে বিস্ফোরণে কমপক্ষে তিনজন শ্রমিক আহত হয়। পরে তাদের সাথে সাথে চিকিৎসার জন্য কুয়ালালামপুর হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ একজনের মৃত্যু হয় ।

সিটি ফায়ার অ্যান্ড রেসকিউ ডিপার্টমেন্টের মতে,বাকী দুজন শ্রমিকও দুর্ঘটনায় বেশ গুরুতর আঘাত পেয়েছে,তাদের পা হারানোর সম্ভাবনা বেশি। কন্সট্রাকশন সাইটে এমন ভয়াবহ বিস্ফোরণ সবাইকে ভাবিয়ে তুলেছে। "তদন্ত সম্পূর্ণরূপে সম্পন্ন হলে ঘটনাটির আসল কারণ জানা যাবে। " প্রাথমিকভাবে বিস্ফোরণের কারণ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের একটি পুরনো বোমা থেকে হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

কুয়ালালামপুর পুলিশ প্রধান কর্নেল দাতুক অমর সিং বোমার প্রমাণ পেয়েছেন কিন্তু তার ধরনটি বিস্তারিতভাবে উল্লেখ করেননি । এটি হঠাৎ বিস্ফোরিত হয় যখন সেখানে নির্মাণ কাজ চলছিল। 

 

সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে দেখুন কে জয়ী হয়
                                  

বিএনপি নেতা জয়নাল আবেদীন ফারুক বলেছেন সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে নির্বাচন দিয়ে দেখুন- কে জয়ী হয়। দোয়া করবেন, বেগম খালেদা জিয়া আবারো প্রধানমন্ত্রী হবেন-এটি খুব দূরে নয়।

রবিবার রাতে নিউইয়র্ক সিটির ব্রুকলীনে গ্রীনহাউজ রেস্টুরেন্টে সেনবাগ উপজেলা জাতীয়তাবাদী ফোরাম আয়োজিত এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এ কথা বলেন।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে ফারুক বলেন, এখন সময় হচ্ছে সকলকে ডেকে গোল-টেবিল বৈঠকের মধ্য দিয়ে জাতীয় ঐক্যমত সৃষ্টি করার। কিন্তু সেটি না করে সরকার প্রকারান্তরে বাংলাদেশকে মিত্রহীন করার পথে চলছে।

প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা প্রসঙ্গে জয়নাল ফারুক বলেন, পদত্যাগ পত্রের নামে যে নাটক জাতির সামনে উপস্থাপন করা হয়েছে, ৭ লাইনের সেই পত্রে বানান ভুল ৫টি। এ অবস্থায় ১৬ কোটি মানুষ লজ্জা পেলেও এটর্নি জেনারেল কিংবা আইনমন্ত্রী লজ্জা পাননি। লাজ-লজ্জাহীন সরকার বিচার বিভাগকে কুক্ষিগত করার প্রয়াস চালাচ্ছে।  

তিনি বলেন, জনতার ধৈর্যের বাঁধ ভেঙ্গে গেলে পুলিশ আর বুলেট কিংবা দলীয় সন্ত্রাসী দিয়ে আন্দোলন ঠেকানো যাবে না। জনতার রোষানলে পড়তেই হবে অপশাসন আর দু:শাসনে লিপ্তদের।  

জয়নাল আবেদীন ফারুক সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপন করে আরো বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির কথিত নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে কঠিন সংকটে ঠেলে দেয়া হয়েছে। বর্তমান রাজনৈতিক সংকটের জন্য দায়ী আওয়ামী লীগ। বিএনপি আরো ২০ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকতে রাজি, তবে মানুষকে ভোটাধিকার দিতে হবে, নির্ভয়ে ভোট প্রদানের পরিবেশ তৈরী করতে হবে। বিএনপি গণতন্ত্রে বিশ্বাসী রাজনৈতিক দল। সুষ্ঠু নির্বাচনের ফলাফল মেনে নিতে বিএনপি কখনোই দ্বিধা করবে না। তবে এই সরকারের ওপর বিএনপির কোন বিশ্বাস নেই, বাংলাদেশের ১ শতাংশ মানুষও তাদের ক্ষমতায় দেখতে আগ্রহী নয়।

বিএনপির সমাবেশে হোস্ট সংগঠনের সভাপতি জাহাঙ্গীর সোহরাওয়ার্দি সভাপতিত্ব করেন। অতিথি হিসেবে অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক ও জাসাস নেত্রী বেবী নাজনীন, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল, যুগ্ম সম্পাদক কাজী আজম, কোষাধ্যক্ষ জসীম ভূইয়া, বাংলাদেশ সোসাইটির বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারমান এম আজিজ, যুক্তরাষ্ট্র মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি আলহাজ্ব বাবরউদ্দিন, যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সভাপতি আলহাজ্ব আবু তাহের, কম্যুনিটি লিডার আলী ইমাম শিকদার, কাজী নয়ন, নিউইয়র্ক সিটি বিএনপির সভাপতি মাহফুজুল মাওলা নান্নু, বিএনপি নেত্রী সৈয়দা মাহমুদা শিরিন, বৃহত্তর নোয়াখালী সোসাইটির সভাপতি রব মিয়া প্রমুখ।

কণ্ঠশিল্পী ও বিএনপি নেত্রী বেবী নাজনীন বলেন, দেশের মানুষ জনগণের সরকার চায়। পরিবর্তন চায় আপামর জনতা।

বিএনপি নেতা অধ্যাপক দেলোয়ার বলেন, দেশবাসীর মত আমরা প্রবাসীরাও অবাক বিস্ময়ে অবলোকন করছি প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার ঘটনাবলী। এভাবে বিচার বিভাগের মর্যাদা নষ্ট করার অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে।

মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল বলেন, আন্দোলন ব্যতিত শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন স্বৈরাচার সরকারকে হঠানো যাবে না। আমরা নির্দেশের অপেক্ষায় রয়েছি।  

কাজী আজম বলেন, ১/১১ পরবর্তী মঈন-ফখরুদ্দিন সরকারের বিরুদ্ধে এই প্রবাস থেকে আমরা দুর্বার আন্দোলন রচনা করেছিলাম। আবার নির্দেশ চাচ্ছি বেগম জিয়ার। জাতিসংঘ, স্টেট ডিপার্টমেন্ট, কংগ্রেসের সাথে লবিং শুরু করবো ১/১১ এর চেতনায়।  

 

ডেনমার্কে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত
                                  

ডেনমার্কে বিশ্ব শান্তির অগ্রদূত, মাদার অব হিউম্যানিটি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭১তম জন্মদিন পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে আলোচনা সভা এবং প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু ও সুস্থতা কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা।

পবিত্র কোরআন তেলোয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর ভাষা শহীদ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা, জাতীয় চার নেতাসহ ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট এবং মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের স্মরণে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নিরবতা পালন এবং তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় মোনাজাত করা হয়।

Bisk Club

ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ সভাপতি মোস্তফা মজুমদার বাচ্চুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মাহবুবুল হক। এ ছাড়া ডেনমার্ক স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি নাজিম উদ্দিন, ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিউল সাফি, নুরুল ইসলাম টিটু, নাইম উদ্দিন বাবু, সহ-সভাপতি নাসির উদ্দিন সরকার, খোকন মজুমদার, উপদেষ্টা রাফায়েত হোসেন মিঠু, রিয়াজুল হাসনাত রুবেল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, শেখ হাসিনা শুধু জাতীয় নেতাই নন, বর্তমানে তিনি তৃতীয় বিশ্বের বিচক্ষণ নেতা হিসেবেও নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। শুধু বাঙালি নয়, তিনি আজ বিশ্বের নির্যাতিত মানুষের মনের গহীনে স্থান করে নিয়েছেন আকাশসম মানবিকতা, হৃদয় উজাড় করা ভালবাসা, আর মানবকল্যাণে নিজেকে উৎসর্গ করার মাধ্যমে।

অনুষ্ঠানে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ মোসাদ্দিকুর রহমান রাসেল, রাজু আহম্মদ, মোহাম্মদ আশরাফ ফরহাদ, মশিউর রহমান শাওন, রনি, ওমর, আমির জীবন, ফজলে রাব্বি, সামসুল আলম, সোহেল আহমেদ, সাফায়েত অন্তর, শামীম খান, তাসবির হোসেন, মাঞ্জুর আহমেদ মামুন, মনসুর আহমেদ, মোহাম্মাদ ইউসুফ, মাসুম বিল্লাহ, শাওন রহমান, সাইদুর রহমান, নাজমুল ইসলাম, আরিফুল ইসলাম, হাসান শাহীন, তুহীন, আরিফুল হক আরিফ, আজাদুর রহমান, রাজ্জাক, নাজমুল হোসেন, দোলন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

নিউ ইয়র্কে আওয়ামী লীগ নেতা মিসবাহ উদ্দিন সিরাজকে সংবর্ধনা
                                  

বিএনপিপি নিউজ ডেস্ক: নিউ ইয়র্কে সিলেট বিভাগবাসীর পক্ষ থেকে  আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ গণসংবর্ধনা দেয়া হয়েছে।

২৪ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় সিটির উডসাইডের গুলসান ট্যারেসে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এতে হাজির ছিলেন বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমদ, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাসিব মামুন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য এস এম কামাল হোসেন, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক শেখ মকলূ মিয়া, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক এডভোকেট সামছুল ইসলাম, এ্যাথলেটিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল রকিব মন্টু।

 

প্রধান অতিথিকে ফুল দিয়ে অভিনন্দিত করেন মো. তুলন, খায়রুল ইসলাম খোকন, আব্দুর রশিদ রানা, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগ, ল’ সোসাইটি, প্রবাসী ময়মনসিংহবাসী, শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহানগর আওয়ামী লীগ, নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সভাপতি বদরুল হুসেন খাঁন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সৈয়দ বশারত আলী, যুগ্ম সম্পাদক আইরিন পারভীন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা, নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকারিয়া চৌধুরী, সেক্রেটারি ইমদাদ চৌধুরী, কাজী কয়েছ, হাজী এনাম, শাহিন আজমল, শেখ আতিকুল ইসলাম, খসরুজ্জামান খছরু, মিছবাহ আহমদ, মুজাহিদুল ইসলাম, অধ্যাপিকা রানা ফেরদৌস, দেওয়ান শাহেদ, দুরুদ মিয়া, জুয়েল আহমদ, জামাল হুসেন, শিরিন আখতার দিবা, জুনেদ এ খান।

 

সৌদিতে গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত, আহত ১
                                  

সৌদি আরবের দাম্মামে দুর্বৃত্তদের গুলিতে শাহপরান ও শামীম নামে ২ বাংলাদেশি নিহত হয়েছে। এঘটনায় আহত হয়েছে মাহবুব নামে আরও একজন। তাদের সবার বাড়ি কিশোরগঞ্জের ভৈরবে।

তবে, কারা কী কারণে তাদেরকে হত্যা করেছে তাৎক্ষণিকভাবে তা জানা যায়নি।

বঙ্গবন্ধুর নাতনিসহ বাংলাদেশি তিন কন্যার ব্রিটেন জয়
                                  

যুক্তরাজ্যের নির্বাচনে বাংলাদেশি তিন কন্যা বঙ্গবন্ধুর নাতনি টিউলিপ সিদ্দিক, রুপা হক ও রুশনারা আলী জয় পেয়েছেন।

ব্রিটেনের বেথনালগ্রিন অ্যান্ড বো থেকে তৃতীয়বারের মত জয় পেয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রুশনারা আলী। ৪২ হাজার ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হন লেবার পার্টির এ নেতা।

লন্ডনের ইলিং-এ লেবার পার্টির প্রার্থী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রুপা হক ১৩ হাজারের বেশি ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন। রূপা হকের প্রাপ্ত ভোট ৩৩ হাজার ৩৭। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ দলের প্রার্থী জয় মোরিসি পেয়েছেন ১৯ হাজার ২৩০ ভোট। খবর বিবিসির।

২০১৫ সালে রূপা হক প্রথমবারের মতো এমপি নির্বাচিত হন। প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে হঠাৎ করে মধ্যবর্তী নির্বাচন ঘোষণা দেওয়ায় রূপা হককে দুই বছরের মাথায় আসনটি ধরে রাখার লড়াইয়ে নামতে হয়। এর আগে ২০১৫ সালে তিনি মাত্র কয়েক’শ ভোটের ব্যবধানে জিতেছিলেন। মাত্র ২৭৪ ভোটে জয় পাওয়া রূপা এবার জিতেছেন ১৩ হাজার ৮০৭ ভোটের ব্যবধানে।

ব্রিটেনের কিলবার্ন আসন থেকে ফের নির্বাচিত হয়েছেন বঙ্গবন্ধুর নাতনি টিউলিপ সিদ্দিক। ১০ হাজার ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হন লেবার পার্টির এ নেতা।

একঘরে কাতার, বাংলাদেশে প্রভাব কতটা?
                                  

সন্ত্রাসবাদীদের মদদ দেওয়ার অভিযোগে কাতারের সঙ্গে সব ধরনের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে সৌদি আরব, মিসরসহ ছয় দেশ। কাতারকে এভাবে একঘরে করার ব্যাপক প্রভাব পড়তে পারে আরব উপসাগরীয় অঞ্চলের অর্থনীতিতে। ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ। বিশ্লেষকদের আশঙ্কা, ক্ষতির পরিমাণ কয়েক বিলিয়ন ডলার ছাড়াতে পারে।

সৌদি আরব বাংলাদেশের বড় শ্রমবাজার। কাতারেও বাংলাদেশের অনেক শ্রমিক রয়েছেন। সরকারি হিসাবে, ২০১৬ সালে বাংলাদেশ থেকে মোট জনশক্তি রপ্তানির ২২ শতাংশের গন্তব্যস্থল ছিল কাতার। এ অবস্থায় কাতার ও সৌদি আরবের মধ্যে সম্পর্ক নষ্ট হলে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন জাগে, আমাদের দেশে কতটা প্রভাব পড়বে?

সাবেক রাষ্ট্রদূত ও বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউটের ভাইস প্রেসিডেন্ট হুমায়ূন কবির মনে করেন আপাতত কোনো প্রভাব পড়বে না। তবে ভবিষ্যতে পড়তে পারে। সে ক্ষেত্রে তিনি দুটি বিষয় তুলে ধরেন। প্রথমত, উপসাগরীয় দেশগুলোর মধ্যে এই উত্তেজনা দীর্ঘমেয়াদি হলে আমাদের দেশের শ্রমিকদের ওপর প্রভাব পড়বে। সৌদি আরব ও কাতারে নির্মাণ খাতে আমাদের অনেক শ্রমিক কাজ করেন। এখন কাতারে যদি নির্মাণ ব্যয় বাড়ে বা বিনিয়োগ কমে, স্বভাবতই শ্রমবাজারে তার প্রভাব পড়বে। আর এতে বাংলাদেশে প্রভাব পড়বে। তিনি আরও বলেন, ২০২২ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলকে ঘিরে বহু নির্মাণকাজ হচ্ছে কাতারে। আমাদের শ্রমিকেরাও যাচ্ছেন সেখানে। সেই কাজে স্থবিরতা আসতে পারে। দ্বিতীয়ত, এখনো এটা বলা যাচ্ছে না কাতারের ওপর সৌদি আরব আরও চাপ বাড়াবে কি না। যদি বাড়াতে চায় তাহলে ইসলামিক সামরিক জোটের সদস্য হিসেবে বাংলাদেশের সমর্থনও তাঁরা চাইতে পারে। এ ক্ষেত্রে কূটনৈতিক সংঘাতের মধ্যে পড়তে হতে পারে বাংলাদেশকে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফরের কিছুদিন পর সন্ত্রাসবাদ ও উগ্রবাদে মদদ দেওয়ার অভিযোগ তুলে কাতারকে একঘরে করার সিদ্ধান্ত জানাল প্রতিবেশী দেশগুলো। এ ছাড়া ইরানের কথিত প্রশংসাকে ঘিরে এমন সিদ্ধান্ত এসেছে বলে মনে করেন সাবেক এই রাষ্ট্রদূত। তাই এ জটিলতা দীর্ঘমেয়াদি হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

তবে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে এখনই ভয়ের কিছু নেই বলে মনে করছেন বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) জ্যেষ্ঠ রিসার্চ ফেলো নাজনীন আহমেদ। তিনি বলেন, বাংলাদেশকে পর্যবেক্ষণে থাকতে হবে। চুলচেরা বিশ্লেষণের মাধ্যমে কূটনৈতিক সম্পর্ক ঠিক রাখতে হবে। পরবর্তী সময়ে আমরা কোনদিকে যাব তার বিশ্লেষণ প্রয়োজন।

এ তো গেল বাংলাদেশ প্রসঙ্গ। প্রতিবেশীদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্নের ফলে কাতার কতটুকু ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে তার বিশ্লেষণ প্রকাশ করেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। রয়টার্সের বিশ্লেষণ বলছে, কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করা হলেও বিপুল সম্পদ থাকায় সংকট কাটাতে পারবে কাতার। নতুন সম্প্রসারিত বন্দর সুবিধার মাধ্যমে দেশটির তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) রপ্তানি চলবে, খাদ্য সমুদ্রপথে আমদানি করতে পারবে।

তবে নেতিবাচক প্রভাব এড়ানো সহজ নয়। কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর কাতারের পুঁজিবাজারে সূচকের ৭ শতাংশ দরপতন হয়েছে। অর্থনীতিবিদেরা কয়েকটি ক্ষতিকর প্রভাবের দিকের কথা বলেছেন।

১. ক্ষতির মুখে পড়বে দ্রুত বর্ধনশীল কোম্পানি কাতার এয়ারওয়েজ এবং দেশটির পর্যটন খাত।

২. ২০২২ সালে বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ঘিরে অবকাঠামো উন্নয়নে অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক মিলিয়ে প্রায় ২০০ বিলিয়ন ডলারের ঋণ রয়েছে কাতার সরকারের। ইতিমধ্যেই দেশটির বন্ডের দাম কমতে করতে শুরু করেছে। ফলে বোঝাই যাচ্ছে ঋণ নেওয়া আরও বেশি ব্যয়বহুল হয়ে পড়ছে কাতারের জন্য। তবে বন্ডের দাম কমলে বিপাকে শুধু কাতার নয়, উপসাগরীয় ছয়টি দেশেও তার প্রভাব পড়বে।

৩. ২০১৫ সালে ১ দশমিক ০৫ বিলিয়ন ডলারের খাদ্য আমদানি করে কাতার। এর মধ্যে প্রায় ৩১ কোটি ডলারের খাদ্য আমদানি করা হয় সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে। এসব খাদ্যদ্রব্যের মধ্যে বেশির ভাগই দুগ্ধজাত পণ্য। এখন দোহারকে এসব আমদানির জন্য আলাদা ব্যবস্থা নিতে হবে।

৪. নির্মাণকাজের ব্যয় বাড়বে কাতারে। অ্যালুমিনিয়াম ও বাড়ি তৈরির অনেক সরঞ্জামই এখন স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি করা সম্ভব হবে না। এতে মূল্যস্ফীতিতেও চাপ পড়বে।

 
লন্ডনে সন্ত্রাসী হামলায় বাংলাদেশিদের হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি
                                  

লন্ডনে সন্ত্রাসী হামলায় এখনও পর্যন্ত কোনও বাংলাদেশি হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন সেখানের বাংলাদেশ মিশনে কর্মরত একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা। রবিবার মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ তথ্য জানান।

লন্ডনে বাংলাদেশিদের বর্তমান পরিস্থিতি কী? জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখানে বাংলাদেশিদের দৃশ্যমান কোনও সমস্যা নেই। তবে এ ধরনের ঘটনায় একটা মানসিক চাপ তো থাকেই।

উল্লেখ্য, শনিবার রাতে যুক্তরাজ্যের লন্ডন ব্রিজে একটি ভ্যানের ধাক্কায় কয়েকজন পথচারী আহত হন। পরে ওই ভ্যান থেকে চারজন ব্যক্তি বড় আকারের ছুরি নিয়ে নেমে পড়ে। ব্রিজের নিকটবর্তী বরো মার্কেটে কয়েকজনকে ছুরিকাঘাত করে ওই ব্যক্তিরা। তাদের ‍ওপর গুলি চালায় পুলিশ।

পুলিশ জানায়, এই ঘটনায় একাধিক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এছাড়া ভক্সহলে আরেকটি ঘটনা সামাল দেওয়া হচ্ছে। যেটা এই ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নয় বলে জানায় স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড।

 

ব্রিটিশ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১৪ বাংলাদেশি
                                  

ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে আসার প্রক্রিয়া জোরদার করতে আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে। এই নির্বাচনে বিভিন্ন দলের হয়ে ১৪ জন ব্রিটিশ বাংলাদেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আগামী বৃহস্পতিবার এই ভোট হবে।

আটজন লড়ছেন প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির হয়ে। চারজন স্বতন্ত্র প্রার্থী, লিবারেল ডেমোক্রেট ও ফ্রেন্ডস পার্টির হয়ে লড়ছেন একজন করে।

৬৫০ আসনের পার্লামেন্টের ৩৩১টিতে জয়ী হয়ে গতবার সরকার গঠন করেছিল কনজারভেটিভরা। ২০১৫ সালের ওই নির্বাচনে লেবার পার্টির হয়ে লড়েছিলেন পাঁচজন ব্রিটিশ বাংলাদেশি, যাদের তিনজনই জয়ী হন। তবে কনজারভেটিভ দল থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী একমাত্র ব্রিটিশ বাংলাদেশি পরাজিত হয়েছিলেন।

 

জেদ্দায় আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি
                                  
 সৌদি আরবে সফররত স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি মোল্লা মোহাম্মদ আবু কায়ছা জেদ্দায় আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের এ নতুন কমিটির অনুমোদন দেন। 
নবনিযুক্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে শুভেচ্ছা জানিয়ে সংগঠনকে আরও শক্তিশালী করার নির্দেশ দেন কেন্দ্রীয় সভাপতি।

 

ফিনল্যান্ডে জিয়াউর রহমানকে স্মরণ, আলোচনা সভা
                                  
 

সোমবার সন্ধ্যায় হেলসিংকির কনতুলায় বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে আয়োজন করা হয় আলোচনা সভা। এছাড়া সাবেক রাষ্ট্রপতির আত্মার শান্তি কামনা করে অনুষ্ঠিত হয় মিলাদ মাহফিল।

 

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ফিনল্যান্ড বিএনপির সক্রিয় নেতা জামান সরকার। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন মবিন মোহাম্মদ।

১৯৮১ সালের ৩০ মে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে সেনাবাহিনীর একদল সদস্যের হাতে নিহত হন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান।

সামছুল গাজীর স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন- মোকলেসুর রহমান চপল, বদরুম মনির ফেরদৌস, এজাজুল হক ভূঁইয়া রুবেল, মিজানুর রহমান মিঠু, প্রদীপ কুমার সাহা, আলাউদ্দিন মোহাম্মদ, আবদুল্লাহ আল আরিফ, তাপস খান, মোস্তাক সরকার, মোহাম্মদ সাহিন ও আবুল কালাম আজাদ।

বক্তারা দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি নিতে দেশপ্রেমিক প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান।

একইসঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ সব নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান তারা।

 

 

জামান সরকার বলেন, “দেশে আজ গণ আছে তবে তন্ত্র নেই, নীতি নেই। সরকারি দলের নেতাকর্মীরা নিজেদের ভাগবাটোয়ারায় ব্যস্ত। এভাবে চলতে থাকলে দেশ নিয়ে গর্ব করার মতো কিছু আর থাকবে না। প্রবাসে আমরা মুখ দেখাতে পারবো না।”

 

পদ্মাসেতুতে বিপুল ব্যয়ের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, “পাশের দেশেও অনেক কম খরচে বিশাল সেতু তৈরি হয়। আর আমরা নিজেরা কীভাবে লাভবান হবো সেই চিন্তা করে দুর্নীতির মহড়া দেখাচ্ছি।”

জিয়াউর রহমানের আদর্শ ধারণ করে খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমানের যোগ্য নেতৃত্বে ন্যায়ের পথে দেশ গড়তে প্রবাসী নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান জামান সরকার।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন- নাজমুল হুদা মনি, মীর সেলিম, সুমন, তাজুল ইসলাম, মো. আনোয়ার হোসেন, আরিফ বাবু, নাজমুল হাসান, মো. সাইফুর রহমান সাইফ, ফাহমিদ উস সালেহীন, মনোয়ার পারভেজ, ইব্রাহিম খলিল, মো. সালাহউদ্দিন, জনি খান, মো. সামিউল আরেফিন, জাভেদ ইকবাল, মোয়াজ্জেম ভূঁইয়া, মোহাম্মদ জুয়েল, হাজি সুলাইমান, মনিরুল ইসলাম, সবুজ খান, মো. শিপন, মুকুল হোসেন, আহসান হাবিব সজল, সুকান্ত, মোহাম্মদ ইসমাইল, মোহাম্মদ তানিম, আজহার, মো. আশরাফ আহমেদ, ফাহিম শাহরিয়ার, সামি-উর রাশেদীন ও মীর ইসমাইল।

 

ভিয়েনায় বিএনপির বিক্ষোভের মুখে প্রধানমন্ত্রী
                                  

অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় ইউরোপ বিএনপির নেতাকর্মীদের বিক্ষোভের মুখে পড়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর অস্ট্রিয়া সফরকে কেন্দ্র করে ইউরোপের বিভিন্ন দেশের বিএনপি নেতাকর্মীরা নির্ধারিত কনফারেন্স হলের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ ও কালো পতাকা প্রদর্শন করেন।

প্রধানমন্ত্রীর এই সফরকে কেন্দ্র করে অস্ট্রিয়া বিএনপি এই বিক্ষোভ-সমাবেশ ও কালো পতাকা প্রদর্শনের আয়োজন করে।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আগত বিএনপির কয়েকশ নেতাকর্মী শেখ হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এ সময় কালো পতাকা হাতে নিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা প্রধানমন্ত্রীকে লক্ষ্য করে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন।

বিএনপির এই বিক্ষোভের মধ্যেই আণবিক শক্তি সংস্থার টেকনিক্যাল সহযোগিতাবিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর এই সফরকে কেন্দ্র করে অস্ট্রিয়া বিএনপির নেতা নেয়ামুল বশির, এম শামস বাবু, বকুল, আলম, বাবুল, নাসির প্রমুখের সার্বিক তত্ত্বাবধানে বিক্ষোভ-সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমান, সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন খোকন, যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালেক, বেলজিয়াম বিএনপির সভাপতি আহমেদ সাজা, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন বাবু, জার্মানি বিএনপির সভাপতি আকুল মিয়া, সাধারণ সম্পাদক গনী সরকার, যুগ্ম সম্পাদক মুস্তাক খান, ডেনমার্ক বিএনপির সভাপতি গাজী মনির, ফিনল্যান্ড বিএনপির সভাপতি কামরুল হাসান জনি, হলান্ড বিএনপির সভাপতি শরিফ, ইতালি বিএনপির সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক, সাধারণ সম্পাদক ঢালী নাসির উদ্দিন, সুইডেন বিএনপির উপদেষ্টা মহিউদ্দিন জিন্টু, সভাপতি এমদাদ হোসেন কচি, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আবেদীন মোহন, সুইজারল্যান্ড বিএনপির নেতা শামীম খান, আনোয়ার শেখ কবির মোল্লা, যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালিক, যুক্তরাজ্য বিএনপির সদস্য হাবিবুর রহমান, যুক্তরাজ্যের স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি ডালিয়া লাকুরিয়া, তৈমুর রহমান হুমায়ূন, গ্রিস বিএনপির সাবেক সভাপতি চন্দন চৌধুরী, অস্ট্রিয়া বিএনপির আলম মো. এপোলো, সহ-সভাপতি হাজী মাহবুবুল ইসলাম, রেজাউর রাহমান পলাশ, সাধারণ সম্পাদক হানিফ ভুইঞা, ফ্রান্স বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক জুনায়েদ আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল খান, অস্ট্রিয়া বিএনপির আবুল কাসেম রাসেল, মুস্তাফিজুর রাহমান সুমন, শহিদুল ইসলাম, অস্ট্রিয়া ছাত্রদলের মাইদুল মিয়া, যুবদলের শাহীন ভূঁইয়া, যুবনেতা তাকি নাজিব, নাজমুল হোসেন নিয়ামত, দুলাল প্রমুখ।

 

সিঙ্গাপুরের চিঠি: প্রবাসে সেহরি-ইফতারের কষ্ট
                                  

দেশে থাকতে ইফতার করার সময় অপেক্ষা করতাম আজানের জন্য। আজানের ধ্বনি শোনা মাত্রই খাওয়া শুরু করতাম। আবার সেহরি করার সময়ে বাংলাদেশে দেখতাম, পাড়ার ছেলেরা দল বেঁধে বাড়ি বাড়ি গিয়ে সেহরি খাওয়ার জন্য ডাকাডাকি করে।

সিঙ্গাপুরে এই বিষয়গুলোর অনুপস্থিতি টের পাচ্ছি। আমাদের আগের বাসাটা ছিল মসজিদের খুব কাছেই। কিন্তু আজানের শব্দ কানে আসেনি কখনও। ভোরবেলা বাড়ি বাড়ি গিয়ে কেউ সেহরি খাওয়ার জন্য ডেকে দেবে, সেটা কল্পনাও করা যায় না এখানে।

এখানে ঘড়ি আর ঘড়ির অ্যালার্মই একমাত্র ভরসা। রোজার শুরুতেই সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি প্রকাশ করা হয়েছে, তা দেখেই ইফতার করতে হয় এবং সেহরি খেতে হয়।

এমন নয় যে এখানে মুসলমান নেই বলে এভাবেই রোজা পালন করতে হচ্ছে। সিঙ্গাপুরেও প্রচুর মুসলমান বাস করে। প্রতিটি পাড়ায় পাড়ায় রয়েছে মুসলমান। তেমনি হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানসহ সব ধর্মের মানুষ রয়েছে এখানে।

 


 

মন্দিরের ঘণ্টা বা শঙ্খ ধ্বনি যেমন কখনই আমার কানে আসেনি, তেমনি গির্জার ঘণ্টাও কখনও শুনিনি। অথচ সিঙ্গাপুরে সব ধর্মাবলম্বীদেরই প্রচুর উপাসনালয় রয়েছে। এসব উপাসনালয় মেরামতের জন্য সরকার বরাদ্দও দিয়ে থাকে। তবে ধর্ম পালন করতে গিয়ে তা যেন কারো বিরক্তির কারণ হয়ে না দাঁড়ায়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হয়। এ কারণেই সব ধর্মের মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে বাস করছে এখানে।

 

তবে হ্যা, কিছু বিশেষায়িত এলাকা আছে যেসব জায়গায় গেলে আপনি আজানও শুনতে পাবেন, আবার পূজার ঘণ্টাও শুনতে পাবেন। যেমন, আরব স্ট্রিটে গেলে সুলতান মসজিদের সুরেলা আজান কানে আসে। এখানে একটা আবহই রয়েছে তেমন।

চারপাশের দোকানগুলোতে রঙ-বেরঙের গজ কাপড়, বোরকা দেখা যায়, সুগন্ধি অ্যারাবিক চা ও হাতে বোনা পার্সিয়ান কার্পেট চোখে পড়ে। আবার লিটল ইন্ডিয়ায় গেলে মন্দিরের ঘণ্টা শুনতে পাওয়া যায়। সেখানকার বাজারে পূজার সরঞ্জামাদি চোখে পড়ে।

তবে যে যেই পরিবেশে বড় হয়েছে, সে তার পুরনো পরিবেশটার অনুপস্থিতি অনুভব করবে, সেটাই স্বাভাবিক। আমার বেলায়ও তাই ঘটেছে। বছরের এই সময়টায় দেশের কথা মনে পড়ে খুব বেশি।

রমজান মাসে পুরো বাংলাদেশের চেহারা বদলে যায়। পাড়ায় পাড়ায় দোকানিরা হরেক রকমের ইফতারের পসরা সাজিয়ে বসে থাকে। বিকেল হলেই প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে চলে ইফতার তৈরির প্রস্তুতি। প্রতিবেশীরা একে অন্যের বাড়িতে ইফতার সাজিয়ে নিয়ে যায়। বন্ধু-বান্ধব মিলে ইফতার পার্টি আয়োজন তো রয়েছেই। এসব খুব মিস করছি।

 

 

আমাদের বাসার আশেপাশের হকার সেন্টারগুলোতে চলছে সেই পুরনো খাবার। বাংলাদেশের মতো দোকানে দোকানে সাজিয়ে রাখা ছোলা, পেঁয়াজু, বেগুনি খুব মিস করছি এখানে। অবশ্য মুসলামন মাত্রই যে ছোলা, পেঁয়াজু, বেগুনি দিয়ে ইফতার করে, তা কিন্তু নয়। একেক দেশে ইফতারের মেনু একেক রকম।

 

ছোলা, পেঁয়াজু, বেগুনি হলো বাঙালি খাবার। এদেশের মুসলমানরা ইফতার করে তাদের পছন্দের খাবার দিয়ে, যার বেশিরভাগই আমি চিনি না। রোজা শুরু হওয়ার পর থেকে পত্র-পত্রিকায় দেখছি, কোথায় কোথায় হালাল ইফতার পাওয়া যাবে, সেসব বিজ্ঞাপন।

খুব হা-হুতাশের কারণ নেই অবশ্য। ঠিক যে জায়গায় বাস করছি, সেখানে রমজান মাসের দেশি আমেজ না পেলেও, একটু দূরে গেলেই সব পাওয়া যায়। যেমন- সেরাঙ্গুন এলাকায় গেলে মুস্তাফা সেন্টারের আশেপাশের বাংলাদেশি রেস্তোরাঁগুলোতে প্রায় সব ধরনের বাংলাদেশি ইফতার পাওয়া যায়। ওই জায়গাটাকে আমার কাছে সিঙ্গাপুরের বুকে একখণ্ড বাংলাদেশ মনে হয়।  

রাস্তা দিয়ে হাঁটলেই শুনতে পাই কোনো দেশি ভাইয়ের গলার আওয়াজ। দোকানে দোকানে বাংলাদেশি শাক-সবজি আর মাছ।  আমরা প্রায় প্রতি মাসেই একবার করে সেরাঙ্গুন এলাকায় গিয়ে বাজার-সদাই করে আনি। ইচ্ছে আছে রমজান মাসেও যাব সেখানে ইফতার করতে।

আজ আর কথা বাড়ালাম না। রমজান মাস মুসলমানদের ঘরে ঘরে সুখ ও সমৃদ্ধি বয়ে আনুক, সেই প্রত্যাশায় বিদায় নিচ্ছি। ভালো থাকুন, সুস্থ্য থাকুন।

লেখক: রোকেয়া লিটা, লেখক ও সাংবাদিক

ই-মেইল: rokeya.lita@hotmail.com

 


   Page 1 of 17
     প্রবাসের খবর
বৃটিশ সাংবাদিককে টিউলিপের হুমকি, বৃটেন জুড়ে নিন্দার ঝড়
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
মালয়েশিয়ায় তারেক রহমানের জন্মদিন পালন
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
কুয়ালালামপুরে পুলিশি অভিযানে ৬০ বাংলাদেশি আটক
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
মালয়েশিয়ায় বোমা বিস্ফোরণে এক বাংলাদেশি নিহত
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে দেখুন কে জয়ী হয়
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
ডেনমার্কে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
নিউ ইয়র্কে আওয়ামী লীগ নেতা মিসবাহ উদ্দিন সিরাজকে সংবর্ধনা
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
সৌদিতে গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত, আহত ১
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
বঙ্গবন্ধুর নাতনিসহ বাংলাদেশি তিন কন্যার ব্রিটেন জয়
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
একঘরে কাতার, বাংলাদেশে প্রভাব কতটা?
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
লন্ডনে সন্ত্রাসী হামলায় বাংলাদেশিদের হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
ব্রিটিশ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১৪ বাংলাদেশি
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
জেদ্দায় আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
ফিনল্যান্ডে জিয়াউর রহমানকে স্মরণ, আলোচনা সভা
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
ভিয়েনায় বিএনপির বিক্ষোভের মুখে প্রধানমন্ত্রী
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
সিঙ্গাপুরের চিঠি: প্রবাসে সেহরি-ইফতারের কষ্ট
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
জিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে দোয়া-মাহফিল
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
নিউ ইয়র্কে বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় কুমিল্লার একই পরিবারের ৩ জন নিহত
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
রিয়াদ কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সংবাদ সম্মেলন
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
লন্ডনে জাতীয় কবি স্মরণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
বিএনপির আবেদনে সাড়া দেয়নি হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
কানাডার আদালতে ‘বিএনপি নেতার’ আবেদন খারিজ
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
পুলিশি তল্লাশির নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে যুক্তরাজ্য বিএনপি
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
বেগম জিয়ার কার্যালয়ে তল্লাশির প্রতিবাদে ফ্রান্স বিএনপির প্রতিবাদ সভা
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
বেগম খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে পুলিশি তল্লাশির নিন্দা অস্ট্রেলিয়া ছাত্রদলের
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
রিয়াদে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
আবুধাবিতে শেখ রাসেল গোল্ডকাপ ফাইনাল শুক্রবার
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
পর্তুগাল ছাত্রলীগের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
নানা অপতৎপরতায় খর্ব হচ্ছে মালয়েশিয়া প্রবাসীদের অধিকার
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
“বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরীর মুক্তির দাবিতে নিউ ইয়র্কে মানববন্ধন”
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
মালয়েশিয়ার বন্দি শিবিরে ১৪ বাংলাদেশির মৃত্যু
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
যুক্তরাজ্য বিএনপির দোয়া ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
স্পেনে বিএনপি নেতার ওপর ডিম হামলা!
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
গণমাধ্যম দিবসে লন্ডনে আলোচনা সভা
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
মালয়েশিয়ায় শ্রমিক লীগের উদ্যোগে মে দিবস পালিত
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
ইতালি বিএনপির কার্যকরী পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
এখন থেকে শ্রমিকের অভিবাসন ব্যয় কর্মীর তিন-পাঁচ মাসের বেতনের সমপরিমাণ
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
ফ্রান্স বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
সৌদি ছাড়ছেন ১২ হাজার বাংলাদেশি
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
মালয়েশিয়ায় দেখা দিলেন পলাতক কাইয়ুম
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
রিয়াদ মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
ইলিয়াস আলীকে ফেরত চেয়েছে কানাডা বিএনপি
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
সাক্কুর বিজয়ে ফ্রান্সে আনন্দসভা
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
মালয়েশিয়ায় ক্যাসিনোর ফাঁদে বাংলাদেশিরা
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
‘জঙ্গিমুক্ত বাংলাদেশ শেখ হাসিনার অঙ্গীকার’
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
নুরুর হত্যার বিচার বাংলার মাটিতে হবে: বাহরাইন বিএনপির নেতৃবৃন্দ
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
নুরু হত্যার প্রতিবাদে যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রদলের সমাবেশ
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
সুইডেন আওয়ামী লীগের সম্মেলন, মঞ্জু সভাপতি, লাভলু সাধারণ সম্পাদক
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
মালয়েশিয়ায় এক বাংলাদেশি ৭ দিনের রিমান্ডে
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......