খেলাধুলা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
বলবয়কে মেরে রক্তাক্ত করলেন ব্রাজিলের ফুটবলার

স্পোর্টস ডেস্ক : মাঠের খেলা শুধু দর্শকরাই উপভোগ করেন না। বলবয়, নিরাপত্তারক্ষী কিংবা মাঠকর্মীরাও সেটা উপভোগ করেন পাশে দাঁড়িয়ে। তবে যে দল ম্যাচে খারাপ অবস্থায় আছে, তার সামনে উল্টোপাল্টা কিছু করলে বিপদ হতেও পারে। যেমনটা হলো ব্রাজিলের আঞ্চলিক ফুটবলে এক বলবয়ের।

ম্যাচে একটি মাত্র গোল হয়েছে। সেই গোলের সময়ই আনন্দ প্রকাশ করে ফেলেন মাঠের কিনারায় দাঁড়ানো বলবয়। সঙ্গে সঙ্গেই তাকে মাটিতে ফেলে বেদম মার মারেন গোল খাওয়া দলের ফুটবলার জেফারসন রেইস। আরে ব্যাটা, এমন সময়ে কি মেজাজ ঠিক থাকে!

বলবয়কে শুধু দুই একটি চড়-থাপ্পড় দেননি। মাটিতে ফেলে রীতিমত রক্তাক্ত করে দিয়েছেন জেফারসন। তাকে থামাতে গিয়ে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়ে দুই দলই। শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। অবস্থা নিয়ন্ত্রণে আনতে মাঠে নেমে পড়েন নিরাপত্তারক্ষীরা। বলবয়ের তখন নাকমুখ দিয়ে রক্ত ঝরছে।

যিনি মারামারির কান্ডটি সূচনা করেছেন তার দলের নাম অপেরারিও এমএস। জানা গেছে, ম্যাচের বলবয় নাকি অপেরারিওর প্রতিপক্ষ দল কমার্সিয়াল এফসির যুব দলের খেলোয়াড়। তাই দলের সাফল্যে এমন উদযাপন করে বসেছিলেন।

ব্রাজিলের ফুটবলে দাঙ্গা-হাঙ্গামা যেন নিত্য চিত্র হয়ে গেছে। দিন দুয়েক আগে এক ম্যাচে বিশৃঙ্খলতা ঠেকাতে ১০টি লাল আর ৮টি হলুদ কার্ড দেখান রেফারিরা। পরে ম্যাচটি বন্ধ করে দিতে হয়।

 

বলবয়কে মেরে রক্তাক্ত করলেন ব্রাজিলের ফুটবলার
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক : মাঠের খেলা শুধু দর্শকরাই উপভোগ করেন না। বলবয়, নিরাপত্তারক্ষী কিংবা মাঠকর্মীরাও সেটা উপভোগ করেন পাশে দাঁড়িয়ে। তবে যে দল ম্যাচে খারাপ অবস্থায় আছে, তার সামনে উল্টোপাল্টা কিছু করলে বিপদ হতেও পারে। যেমনটা হলো ব্রাজিলের আঞ্চলিক ফুটবলে এক বলবয়ের।

ম্যাচে একটি মাত্র গোল হয়েছে। সেই গোলের সময়ই আনন্দ প্রকাশ করে ফেলেন মাঠের কিনারায় দাঁড়ানো বলবয়। সঙ্গে সঙ্গেই তাকে মাটিতে ফেলে বেদম মার মারেন গোল খাওয়া দলের ফুটবলার জেফারসন রেইস। আরে ব্যাটা, এমন সময়ে কি মেজাজ ঠিক থাকে!

বলবয়কে শুধু দুই একটি চড়-থাপ্পড় দেননি। মাটিতে ফেলে রীতিমত রক্তাক্ত করে দিয়েছেন জেফারসন। তাকে থামাতে গিয়ে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়ে দুই দলই। শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। অবস্থা নিয়ন্ত্রণে আনতে মাঠে নেমে পড়েন নিরাপত্তারক্ষীরা। বলবয়ের তখন নাকমুখ দিয়ে রক্ত ঝরছে।

যিনি মারামারির কান্ডটি সূচনা করেছেন তার দলের নাম অপেরারিও এমএস। জানা গেছে, ম্যাচের বলবয় নাকি অপেরারিওর প্রতিপক্ষ দল কমার্সিয়াল এফসির যুব দলের খেলোয়াড়। তাই দলের সাফল্যে এমন উদযাপন করে বসেছিলেন।

ব্রাজিলের ফুটবলে দাঙ্গা-হাঙ্গামা যেন নিত্য চিত্র হয়ে গেছে। দিন দুয়েক আগে এক ম্যাচে বিশৃঙ্খলতা ঠেকাতে ১০টি লাল আর ৮টি হলুদ কার্ড দেখান রেফারিরা। পরে ম্যাচটি বন্ধ করে দিতে হয়।

 

বাংলাদেশের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচের দল ঘোষণা
                                  

দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজও হার দিয়ে শুরু করেছে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে নিজেদের সর্বোচ্চ সংগ্রহ গড়েও বোলারদের ব্যর্থতায় জয়ের দেখা পায়নি টাইগাররা। তবে দ্বিতীয় ম্যাচের আগে দলে কোন পরিবর্তন আনেনি বিসিবি। দ্বিতীয় ম্যাচের জন্য ঘোষিত দলে প্রথম ম্যাচে ডাক পাওয়া সবাই আছেন। ইনজুরি থেকেই পুরোপুরি সুস্থ না হওয়ায় এ ম্যাচের একাদশে রাখা হয়নি সাকিবকে।

এর আগে ত্রিদেশীয় সিরিজে শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে শিরোপা হাতছাড়া করার পর দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজেও হেরে যায় বাংলাদেশ। এবার টি-টোয়েন্টি সিরিজও শুরু হয়েছে হার দিয়ে। তবে সিলেটে ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া টাইগাররা। শেষ ম্যাচে জয় দিয়ে সিরিজে সমতা আনতে চান মাহমুদউল্লাহ বাহিনী।

 

আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি সিলেটে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শেষ টি-টোয়েন্টি খেলতে নামবে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ দল

তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহীম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), সাব্বির রহমান, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, আবু জায়েদ রাহী, আফিফ হসেন, জাকির হোসেন, আরিফুল হক, মেহেদী হাসান, আবু হায়দার রনি, নাজমুল অপু, মোহাম্মদ মিঠুন।

 

টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে পাঁচ নতুন মুখ
                                  

ত্রিদেশীয় সিরিজে শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে শিরোপা হাতছাড়া করার পর দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজেও হেরে গেছে বাংলাদেশ। এবার লক্ষ্য টি-টোয়েন্টি সিরিজে ঘুরে দাঁড়ানো। এদিকে দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচের জন্য ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বিসিবির ঘোষিত দলে নতুন মুখের ছড়াছড়ি।

জাগো নিউজের পাঠকরা আগেই জেনেগিয়েছিলেন টি-টোয়েন্টি দলে ডাক পাচ্ছেন বিপিএলে দুর্দান্ত পারফর্ম করা আবু জায়েদ রাহী, আরিফুল হক ও মেহেদী হাসান। তবে শুধু এই তিনজনই নয়, নতুন মুখ হিসেবে আরও ডাক পেয়েছেন জাকির হোসেন ও আফিফ হোসেন। এছাড়া দলে ফিরেছেন তামিম ইকবাল, মোস্তাফিজুর রহমান ও আবু হায়দার রনি।

বাংলাদেশ দল 

সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহীম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, আবু জায়েদ রাহী, আফিফ হসেন, জাকির হোসেন, আরিফুল হক, মেহেদী হাসান, আবু হায়দার রনি।

 

অস্বস্তি নিয়েই দিন শেষ করলো বাংলাদেশ
                                  

শ্রীলঙ্কাকে ২২২ রানে বেধে রাখার পর সবাই ভেবেছিল বাংলাদেশ বুঝি প্রথমদিনই অনেক এগিয়ে গেলো; কিন্তু যে অস্ত্র দিয়ে লঙ্কানদের ঘায়েল করেছে বাংলাদেশ, সেই অস্ত্র তো লঙ্কানদের হাতেও রয়েছে। যদিও তুন থেকে আসল তির বের করার আগেই অহেতুক উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। একমাত্র স্পিনার দিলরুয়ান পেরেরা একটি উইকেট পেলেও, প্রথম দিন শেষে বাংলাদেশ হারিয়েছে ৪টি উইকেট। রান তুলতে পেরেছে মাত্র ৫৬টি। এখনও লঙ্কানদের চেয়ে ১৬৬ রান পিছিয়ে বাংলাদেশ।

শ্রীলঙ্কাকে ২২২ রানে অলআউট করার পর বাংলাদেশ যে খুব বেশি দুর যেতে পারবে না সেটা শুরুতেই বুঝিয়ে দিয়েছিলেন ওপেনার তামিম ইকবাল, মুমিনুল হক আর মুশফিকুর রহীম। অভিজ্ঞ এই তিন ব্যাটসম্যান যেভাবে আউট হলেন, তাতে চালকের আসনে বাংলাদেশ নয়, উল্টো শ্রীলঙ্কাই বসে গেছে।

ওপেনার তামিম ইকবাল ইনিংসের প্রথম ওভারের তৃতীয় বলেই রিটার্ন ক্যাচ দিয়ে বসলেন পেসার সুরঙ্গা লাকমালের হাতে। দুর্ভাগ্য তামিমের, দুর্ভাগ্য বাংলাদেশেরও। দলীয় মাত্র ৪ রানের মাথায় পতন ঘটলো বাংলাদেশের প্রথম উইকেটের।

তামিমেরটা না হয় দুর্ভাগ্য হিসেবে মেনে নেয়া গেলো; কিন্তু মুমিনুলেরটা কিভাবে মেনে নেয়া যায়! অতি আত্মবিশ্বাস কোথায় নিয়ে যেতে পারে, সেটাই দেখালেন মুমিনুল। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই খামখেয়ালিপনা করতে গিয়েই বলতে গেলে রানআউট হয়ে গেলেন চট্টগ্রাম টেস্টের নায়ক এবং টেস্টে বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক।

কুশল পেরেরাকে মিড-অফে খেলেই এক রান নিতে গেলেন ইমরুল কায়েস। দৌড়ে আসলেন মুমিনুলও; কিন্তু ক্রিজে পৌঁছে গেছেন মনে করে কিংবা কাছাকাছি হওয়ার পর রানআউট থেকে বেঁচে গেছেন মনে করে তিনি কিছুটা স্লো হয়ে যান। এরই মধ্যে বল চলে আসল। মুমিনুল ব্যাট ক্রিজে ছোঁয়ানোর আগেই উইকেট ভেঙে দিলেন উইকেটরক্ষক ডিকভেলা। ৪ রানে পড়লো দ্বিতীয় উইকেট।

তামিম-মুমিনুলের পরপর বিদায় মানে বাংলাদেশের দারুণ ব্যাটিং বিপর্যয়। এই বিপর্যয় সামাল দিতে খুব সতর্কভাবে এগিয়ে চলা প্রয়োজন ছিল ইমরুল কায়েস আর মুশফিকুর রহীমকে। এ দু’জনকে সে চেষ্টা করেননি তা নয়। বিশেষ করে মুশফিকুর রহীম; কিন্তু অতি সতর্কতা এবং বোকামির দণ্ড দিতে হলো তাকে। সুরঙ্গা লাকমালের বল ছেড়ে দিতে গিয়ে বোল্ড হয়ে গেলেন মুশফিক। দলকে আরও বেশি বিপর্যয়ে ফেলে আউট হয়ে গেলেন তিনি।

খেলা চলছিল তখন ৯ম ওভারের। ওভারের শেষ বলটি অফ স্ট্যাম্পের অনক বাইরে মনে করে ছেড়ে দেন মুশফিক। যদিও তিনি দাঁড়িয়েছিলেন লেগ স্ট্যাম্পের ওপর। কিন্তু বল হালকা ইনসুইং করে ভেতরে ঢুকে যায় এবং উড়িয়ে দিয়ে যায় তার উইকেট। ১২ রানে পড়লো ৩য় উইকেট। মুশফিক বিদায় নিলেন মাত্র ১ রান করে।

মুশফিকের বিদায়ের পর ধরে খেলার চেষ্টা করেন ইমরুল কায়েস এবং লিটন কুমার দাস। এ দু’জনের ব্যাটে ৩৩ রানের জুটি গড়ে ওঠে। কিন্তু লঙ্কান স্পিনারদের চাপের মুখে টিকে থাকাই যেন কঠিন হয়ে পড়ে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের জন্য। সে কারণে, টিকতে পারলেন না ইমরুল কায়েসও। তিনিও আউট হয়ে গেলেন ঘূর্ণি তোপে পড়ে।

দিলরুয়ান পেরেরার বলে এলবিডব্লিউ হয়ে যান ইমরুল। যদিও রিভিউ নিয়েছিলেন তিনি; কিন্তু লাভ হলো না। উইকেট হারান তিনি। এ সময় তার ব্যক্তিগত রান ছিল ১৯। ৫৫ বলে খেলা ইনিংসটি সাজানো ছিল ৩ বাউন্ডারিতে। ইমরুল আউট হওয়ার পর আর দুই ওভার খেলা হলো। এরপরই শেষ হলো প্রথম দিনের খেলা।

এর আগে টস জিতে প্রথমেই ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় শ্রীলঙ্কা। ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের দুই স্পিনার আবদুর রাজ্জাক আর তাইজুল ইসলামের ঘূর্ণিতে ২২২ রানে অলআউট হয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। রাজ্জাক এবং তাইজুল দু’জনই নেন ৪টি করে উইকেট। বাকি ২টি নেন মোস্তাফিজুর রহমান। কিুশল মেন্ডিস করেন সর্বোচ্চ ৬৮ রান এবং ৫৬ রান করেন রোশেন সিলভা।

ছেলের ছবিসহ ফেসবুকে পোস্ট দিলেন মুশফিক
                                  

অবশেষে দেখা মিলল মুশফিক-পুত্রের। মুশফিকুর রহীম নিজেই তার ফেসবুক ভেরিফাইড পেজে নতুন অতিথিকে কোলে নিয়ে নিজের একটি ছবি পোস্ট করেছেন।

ছেলেকে কোলে নিয়ে তোলা ছবিটি পোস্ট করে মহান আল্লাহর কাছে কৃতজ্ঞতা এবং সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন মুশফিক। তিনি লিখেছেন, `আল্লাহ আমাদের ছোট্ট একটি স্বর্গদূত দিয়ে মহিমান্বিত করেছেন। আপনাদের সকলের কাছে অনুরোধ, দয়া করে আমার সন্তানকে আন্তরিকতা এবং দোয়া দিয়ে আশীর্বাদ করবেন। জাযাকাল্লাহ খায়ের।`

এর আগে মুশফিকুর রহীমের বাবা মাহবুব হামিদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নতুন অতিথি পৃথিবীতে আসার বিষয়টি নিশ্চিত করে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। স্ট্যাটাসে মুশফিকের বাবা লেখেন, `আলহামদুলিল্লাহ!!! অবশেষে বহু কাঙ্ক্ষিত সেই দাদা ভাই, সকাল নয়টা আটাশ মিনিটে এই দুনিয়ায় চলে এলেন। শুকরিয়া গো খোদা তোমার প্রতি। দোয়ার জন্য সকলের কাছে দরখাস্ত। মা ও ছেলে দুইজনেই সুস্থ আছে। আল্লাহ যেন দাদা ভাইকে ভাল মানুষ করেন। আমিন!!!`

মুশফিকুর রহীম যে বাবা হবেন, এ খবর জানা গিয়েছিল আগেই। দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ থেকে ফিরে আসার পরই স্ত্রী জান্নাতুল কিফায়াত মন্ডিকে ডাক্তার দেখানোর জন্য তিনি থাইল্যান্ড গিয়েছিলেন মুশফিক। তখনই জানা গিয়েছিল খুব শিগগিরই বাবা হতে যাচ্ছেন টেস্ট দলের সাবেক এ অধিনায়ক।

এর আগে স্ত্রী সন্তান সম্ভবা এবং সময়টাও খুব কাছাকাছি- এ কারণে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে ছুটি চেয়ে বিসিবির কাছে আবেদন করেছিলেন মুশফিক। কিন্তু তার দুর্ভাগ্য, একই সময় ইনজুরিতে পড়ে গেলেন সাকিব আল হাসান। গুরুত্বপূর্ণ এক খেলোয়াড়কে হারিয়ে ফেলার কারণে, মুশফিকের ছুটি আর মঞ্জুর করেনি বোর্ড। তবে, টেস্ট শেষ হওয়ার পরের দিন সন্তান জন্ম নেওয়ায় স্ত্রী মন্ডির পাশে থাকার সুযোগটা পেয়ে গেছেন মুশফিক।

 

চট্টগ্রাম টেস্ট: বাংলাদেশের কৃতিত্বপূর্ণ ড্র
                                  

হারের শঙ্কা এড়িয়ে চট্টগ্রাম টেস্টে ড্র করেছে বাংলাদেশ। গতকাল ৮১ রানে তিন উইকেট পড়ে যায় টাইগারদের। মুমিনুলের সেঞ্চুরি, লিটন দাসের ৯৪ ও অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দায়িত্বশীল  ইনিংসে দ্বিতীয় ইনিংসে পাঁচ উইকেটে ৩০৭ রান তোলার পর ড্র মেনে নেন শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক। 

চা বিরতির পর খেলা হয় ঘণ্টা খানেক। খেলার ফলাফল আসা সম্ভব না দেখে ১৬ ওভার খেলা বাকি থাকতেই ড্র মেনে নেন দুই অধিনায়ক। এদিন সেঞ্চুরি তুলে নেন মুমিনুল হক। যা এই ম্যাচে তার দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে এক ম্যাচে পর পর দুটি সেঞ্চুরির মালিকও তিনি।

এর আগে খেলার পঞ্চম দিন ১১৯ রানে পিছিয়ে থেকে মাঠে নামে বাংলাদেশ। যেখানে চতুর্থ দিন ৮১ রানে টডঅর্ডারের তিন উইকেট হারিয়েছিল স্বাগতিকরা। বাজে শট খেলে আউট হন তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস ও মুশফিকুর রহিম।

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে সবকটি উইকেট হারিয়ে ৫১৩ করে। সেঞ্চুরি করেছিলেন মুমিনুল হক (১৭৬)। জবাবে চতুর্থ দিন ৯ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কা ৭১৩ রানের নিজেদের প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে। যেখানে ২০০ রানের লিড পায় সফরকারীরা।

এই ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ৫১৩ রানে করে বাংলাদেশ দল। ওই ইনিংসে ২১৪ বলে ১৭৬ রানের অসাধারণ একটি ইনিংস খেলে আউট হন মুমিনুল। অন্যদিকে প্রথম ইনিংসে নেমে হতাশ করেছিলেন লিটন। তবে দ্বিতীয় ইনিংসে তার ব্যাট দিয়ে রানের আলো ছড়ান ২৩ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।  

 

তিন উইকেট হারিয়ে চাপে বাংলাদেশ
                                  

২০০ রানে পিছিয়ে থেকে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করেছিল বাংলাদেশ। শুরুটা ভালোই করেছিল তামিমরা। কিন্তু দিন শেষে সেটা আর ভালো থাকেনি। দ্বিতীয় ইনিংসেও প্রথম ইনিংসের মতই ঝড়ো ব্যাটিং করতে থাকেন তামিম। তুলনায় কিছুটা রয়ে সয়ে খেলার চেষ্টা করেন ইমরুল কায়েস। কিন্তু হাটু গেড়ে সুইপ করতে গিয়ে সেই ইমরুলকে দিয়েই উইকেট পতনের শুরু। 

দিলরুয়ানে পেরেরার বলে চান্দিমালের হাতে ক্যাচ দিয়ে দলীয় ৫২ রানের মাথায় আউট হন কায়েস।  আউট হওয়ার আগে ১৯ রান করেন তিনি। এরপর আউট হন তামিম ইকবাল। সান্দকানের একটি বল রক্ষণাত্মক ভাবে খেলতে গিয়েও ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় ডিকওয়েলার কাছে। আর ক্যাচটি ধরতে ভুল করেননি লঙ্কান তারকা। দিনের মাত্র ৪ ওভার বাকি থাকতে তামিমের এই আউটই হয়তো পোড়াত বাংলাদেশকে। কিন্তু তার উপর যেন মরিচ বাটা হয়ে আসে মুশফিকের আউট। 

দিনের একেবারে শেষ বলে রঙ্গনা হেরাথের বলে কুশাল মেন্ডিসের দারুন এক ক্যাচে পরিণত হয়ে সাঝঘরে ফিরেন মুশফিক। আর সেই সাথেই শেষ হয়ে যায় দিনের খেলা। যেখানে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উই্কেটে ৮১ রান।   

শ্রীলঙ্কা থেকে বাংলাদেশ এখনো পিছিয়ে আছে ১১৯ রানে। আর উইকেটে ভরসা হিসেবে আছেন প্রথম ইনিংসে ১৭৬ রান করা মুমিনুল হক।
সংক্ষিপ্ত স্কোর

চতুর্থ দিন শেষে বাংলাদেশ পিছিয়ে ১১৯ রানে।

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৫১৩ (১২৯.৫ ওভার)

(তামিম ইকবাল ৫২, ইমরুল কায়েস ৪০, মুমিনুল হক ১৭৬, মুশফিকুর রহিম ৯২, লিটন দাস ০, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৮৩*, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ৮, মেহেদী হাসান মিরাজ ২০, সানজামুল ইসলাম ২৪, তাইজুল ইসলাম ১, মোস্তাফিজুর রহমান ৮; সুরঙ্গা লাকমল ৩/৬৮, লাহিরু কুমারা ০/৭৯, লাহিরু কুমারা ১/১১২, রঙ্গনা হেরাথ ৩/১৫০, লক্ষণ সান্দাকান ২/৯২, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ০/১২)।

শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংস: ৭১৩/৯ডি (১৯৯.৩ ওভার)

(দিমুথ করুণারত্নে ০, কুসল মেন্ডিস ১৯৬, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ১৭৩, রোশেন সিলভা ১০৯, দিনেশ চান্দিমাল ৮৭, নিরোশান ডিকওয়েলা ৬২, দিলরুয়ান পেরেরা ৩২, রঙ্গনা হেরাথ ২৪, সুরঙ্গা লাকমল ৯, লাহিরু কুমারা ২*; মোস্তাফিজুর রহমান ১/১১৩, সানজামুল ইসলাম ১/১৫৩, মেহেদী হাসান মিরাজ ৩/১৭৪, তাইজুল ইসলাম ৪/২১৯, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ০/২৪, মুমিনুল হক ০/৬, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ০/৭)।

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস: ৮১/৩* (২৬.৫ ওভার)

(তামিম ইকবাল ৪১, ইমরুল কায়েস ১৯, মুমিনুল হক ১৮*, মুশফিকুর রহিম ২; রঙ্গনা হেরাথ ১/২২, সুরঙ্গা লাকমল ০/১৬, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ০/২০, দিলরুয়ান পেরেরা ১/২০, লক্ষণ সান্দাকান ১/৩)।

ইংল্যান্ডের ওয়ানডে দলে স্টোকস
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক : ব্রিস্টলে নাইটক্লাবের সামনে মারামারি করার মামলাটা এখনও কাঁধে বয়ে বেড়াচ্ছেন বেন স্টোকস। এমন গুরুত্বপূর্ণ একজন অলরাউন্ডারকে বারবার দলে নিতে চাইলেও মামলার কারণে পিছপা হচ্ছিল ইংল্যান্ড। তবে এবার তার প্রতি একটু নমনীয় হয়েছে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)।

গত ১৭ জানুয়ারি ইসিবি জানিয়েছিল, মামলা চললেও দলে বিবেচনায় আসবেন স্টোকস। সেই ঘোষণামতোই এবার ওয়ানডে দলে ডাক পেলেন বিশ্বের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরু হচ্ছে আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি। এই সিরিজের জন্য ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে ইংল্যান্ড। এই দলে আছেন স্টোকস। তবে ১৩ ফেব্রুয়ারি শুনানিতে অংশ নিতে আদালতে হাজির হতে হবে এই অলরাউন্ডারকে। সেখানে বড় কোনো শাস্তির সিদ্ধান্ত না হলে তবেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলতে পারবেন তিনি।

ইংল্যান্ড দল
ইউয়ন মরগান (অধিনায়ক), মঈন আলী, জনি বেয়ারস্টো, স্যাম বিলিংস, জস বাটলার, টম কুরান, অ্যালেক্স হেলস, লিয়াম প্লাংকেট, আদিল রশিদ, জো রুট, জেসন রয়, বেন স্টোকস, ডেভিড উইলি, ক্রিস ওকস এবং মার্ক উড।

 


   Page 1 of 1
     খেলাধুলা
বলবয়কে মেরে রক্তাক্ত করলেন ব্রাজিলের ফুটবলার
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
বাংলাদেশের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচের দল ঘোষণা
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে পাঁচ নতুন মুখ
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
অস্বস্তি নিয়েই দিন শেষ করলো বাংলাদেশ
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
ছেলের ছবিসহ ফেসবুকে পোস্ট দিলেন মুশফিক
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
চট্টগ্রাম টেস্ট: বাংলাদেশের কৃতিত্বপূর্ণ ড্র
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
তিন উইকেট হারিয়ে চাপে বাংলাদেশ
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......
ইংল্যান্ডের ওয়ানডে দলে স্টোকস
............ ...... ....... ....... ............................. .......................... ... .... ......