শেয়ার করুন
Share Button
  
  ৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ৬১ নতুন সেতু
  6, March, 2016, 8:32:10:PM

নব আলো : রাজশাহী, রংপুর, খুলনা, বরিশাল ও গোপালগঞ্জ সড়ক জোনে প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ৬১টি ছোট-বড় সেতু নির্মাণ করা হবে। এসব সেতু নির্মাণে জাপান সরকার প্রকল্প সহায়তা দিবে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা।
বুধবার তেজগাঁওস্থ সড়ক ভবনে এ লক্ষ্যে পরামর্শক নিয়োগের চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। এ সময় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের উপস্থিত ছিলেন।
চুক্তিপত্রে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকোশলী ইবনে আলম হাসান এবং পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের পক্ষে ওরিয়েন্টাল কনসালটেন্ট কোম্পানি লি., জাপানের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মি. তমোয়ুকি ফুকোসিমা নিজ নিজ স্বাক্ষর করেন।
‘ওয়ের্স্টান বাংলাদেশ ব্রিজ ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্ট (ডব্লিউবিবিআইপি)’ শীর্ষক প্রকল্পের অধীনে দেশের ছয়টি জোনের ২৪টি জেলায় মোট ৬১টি সেতু নির্মাণ করা হবে। এসব সেতুর মোট দৈর্ঘ্য হবে ৪ হাজার ৭১৫ মিটার। এর মধ্যে গোপালগঞ্জ জোনে সাতটি, রাজশাহী জোনে ১৬টি, রংপুর জোনে ১৯টি, খুলনা জোনে নয়টি, বরিশাল জোনে নয়টি এবং ঢাকা জোনে একটি সেতু নির্মিত হবে।
এর মধ্যে ফরিদপুর জেলায় ছয়টি, মাদারীপুর জেলায় একটি, সিরাজগঞ্জ জেলায় আটটি, নাটোর জেলায় একটি, পাবনা জেলায় চারটি, নওগাঁ জেলায় একটি, রাজশাহী জেলায় দুটি, বগুড়ায় দুটি, জয়পুরহাটে দুটি, লালমনিরহাটে একটি, গাইবান্ধায় দুটি, দিনাজপুরে পাঁচটি, রংপুর জেলায় চারটি, নীলফামারীতে একটি, পঞ্চগড়ে দুটি, বাগেরহাটে দুটি, যশোরে একটি, নড়াইলে একটি, ঝিনাইদহে দুটি, কুষ্টিয়ায় তিনটি, বরিশালে সাতটি, পিরোজপুরে একটি, ঝালকাঠিতে দুটি এবং নরসিংদী জেলায় একটি।
পুরো প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে দুই হাজার ৯১১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। এর মধ্যে প্রকল্প সাহায্য হিসেবে জাইকা দিবে ১ হাজার ৯০৫ কোটি ১৯ লাখ টাকা। বাকি ১ হাজার ৬ কোটি ৫৫ লাখ টাকা সরকারি অর্থায়নে (জিওবি) ব্যয় হবে।
২০২০ সালের জুন মাসের মধ্যে প্রকল্পের অধীনে এসব সেতু নির্মাণ সম্পন্ন করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। প্রকল্পের পরার্মশক প্রতিষ্ঠান হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে জাপানের তিনটি এবং অষ্ট্রেলিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- জাপানের অরিয়েন্টাল কনসালটেন্ট গ্লোবালকো লি., অরিয়েন্টাল কনসালটেন্টস কো. লি., কাতাহিরা অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারস ইন্টারন্যাশনাল এবং অষ্ট্রেলিয়ার এসএমইসি ইন্টারন্যাশনাল প্রা. লি.।
পরার্মশক প্রতিষ্ঠানের চুক্তিমূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ভ্যাট ও আইটিসহ ২২০ কোটি ২৩ লাখ টাকা।
এদিন কক্সবাজার জেলার চকোরিয়ার একতাবাজার হতে মহেশখালীর মাতারবাড়ি পর্যন্ত প্রায় ৪৪ কিমি. দীর্ঘ সড়ক চারলেনে উন্নীত করার লক্ষ্যে পরামর্শক নিয়োগের চুক্তিও স্বাক্ষরিত হয়।



:        
   আপনার মতামত দিন