শেয়ার করুন
Share Button
   রাজনীতি
  মাঠে আওয়ামী লীগ, ঘরে বিএনপি
  2, March, 2018, 4:40:17:PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচারণা শুরু করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। খোদ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকার বাইরে জনসভা করেছেন। নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর এ নির্বাচনী প্রচারণা অব্যাহাত থাকবে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। 

অপরদিকে, বিএনপি এখনো কার্যত চার দেয়ালের ভেতরে বন্দি। রাজধানীতে বিভিন্ন হলরুমে ঘরোয়া সভা করলেও মাঠে নেই দলটি। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত হয়ে তিন সপ্তাহ ধরে জেলে রয়েছেন দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তাঁকে মুক্তির দাবিতে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন দলটির নেতাকর্মীরা। আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে দলে আগ্রহ থাকলেও এখন পর্যন্ত প্রচারণায় নেই। নেতাদের কেউ কেউ এখনোই প্রচারণায় নামার বিপক্ষে। বরং দলের হাইকমান্ড বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তি নিয়ে  উৎকণ্ঠায় রয়েছেন বলে জানা গেছে।

সংবিধান মতে, ২০১৯ সালের ১২ জানুয়ারির আগে ৯০ দিনের মধ্যে যে কোনো দিনেই একাদশ সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা। নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে এরই মধ্যে দৃশ্যমান বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে ক্ষমতাসীন দলটি। পর্দার আড়ালে বিএনপিতেও নির্বাচনী প্রস্তুতি চলছে। কিন্তু সম্প্রতি খোদ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করায় প্রচারণার দৌড়ে অনেকটাই এগিয়ে গেছে ক্ষমতাসীন দল। শুধু আওয়ামী লীগ সভানেত্রী নয়, বরং দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ শীর্ষ নেতারাও এখন রাজধানী ও রাজধানীর বাইরে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। 

শনিবার (৩ মার্চ) খুলনা সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে গত ৩০ জানুয়ারি সিলেটে জনসভা করে আওয়ামী লীগের আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচার শুরু করেছেন দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা। এর পর ৮ ফেব্রুয়ারি তিনি বরিশাল এবং ২২ ফেব্রুয়ারি রাজশাহীতে জনসভা করেন। এর আগেও যশোরসহ বিভিন্ন জেলায় সরকারি সফরে গিয়ে আওয়ামী লীগের আয়োজনে জনসভায়ও অংশ নিয়েছেন দলের সভাপতি। ওই জনসভাতেও তিনি আগামী জাতীয় নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দেয়ার আহ্বান জানান।

এ ছাড়াও নির্বাচনকে সামনে রেখে তৃণমূলকে সংগঠিত করতে কেন্দ্রীয় নেতাদের সমন্বয়ে ১৫টি টিম গঠন করা হয়েছে। তারা সারাদেশের জেলা-উপজেলা সফর করে তৃণমূলে দলকে সুসংগঠিত করবেন। দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দল মেটানোর পাশাপাশি সম্ভাব্য দলীয় প্রার্থীদের সম্পর্কে খোঁজখবর নেবেন। 

আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্রে জানা গেছে, টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের মিশন নিয়ে জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগের ১৫টি টিম মাঠে নেমেছে। মূল লক্ষ্য জাতীয় নির্বাচনের জন্য তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করার বার্তা দেয়ার পাশাপাশি কোন আসনে কে হতে পারেন যোগ্য প্রার্থী তার মূল্যায়ন প্রতিবেদন তৈরি করা। তাই প্রতিটি আসনের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীদের খসড়া তালিকা সাংগঠনিক সফর দলের প্রধানদের কাছে ইতোমধ্যে সরবরাহ করা হয়েছে বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে।

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, দেশের মানুষ নির্বাচনের অপেক্ষায় আছে। নেতাকর্মীরা এ নিয়ে উৎসাহী। নেতাকর্মীদের সক্রিয় ও ঐক্যবদ্ধ রাখেতই নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হয়েছে। কারণ, নেতাকর্মীরাও মনে করেন, ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগকে কোনো দল হারাতে পারবে না। এটা দলের শীর্ষ পর্যায়ের নির্দেশ। 

দলটির প্রচার ও প্রকাশনাবিষয়ক সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, নির্বাচনের দুই বছর বাকি থাকলেও সেটাকেও আওয়ামী লীগ কম সময় মনে করছে। তাই নেতাকর্মীদের এখন নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। বিশেষ করে গত ৮ বছরে আওয়ামী লীগ সরকার দেশে যে উন্নয়নের জোয়ার সৃষ্টি করেছে-সেই বার্তা মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে নেতাকর্মীরা ঘরে ঘরে যাবেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আবারো আওয়ামী লীগকে সুযোগ দিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানানো হচ্ছে।

অন্যদিকে বিএনপিতে নির্বাচন নিয়ে আগ্রহ থাকলেও এখনো নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেনি দলটি। বর্তমানে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি করছে। রাজধানীতে প্রতিদিনই বিএনপির শীর্ষ নেতারা বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে আয়োজিত আলোচনা সভা ও সেমিনারে বক্তৃতা করছেন। অবশ্য দলের একটি সূত্র বলছেন, প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর পর থেকেই বিএনপিতে-এ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, বিএনপি নির্বাচনমুখী দল। দেশের মানুষ নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই আগামীতে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চায়। সেই নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিতে সাংগঠনিকভাবে প্রস্তুতি আছে। তিনি বলেন, নির্বাচনী প্রচারণায়ও এখন লেবেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই। প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালালেও বিএনপিকে দাঁড়াতেই দিচ্ছে না। তারা এভাবে আবারো একতরফা নির্বাচন করে ক্ষমতায় থাকার চেষ্টা করছে।

এদিকে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা করে নৌকা মার্কায় ভোট চাওয়া ঠেকাতে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দিয়েছে বিএনপি। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলছেন, ‘রাষ্ট্রীয় টাকা খরচ করে প্রধানমন্ত্রী দেশ-বিদেশে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। এ ধরনের নির্বাচনী প্রচারণা বন্ধে নির্বাচন কমিশনের চিঠি দিয়েছি আমরা। বলেছি, নির্বাচনের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড করতে হলে এসব বন্ধ করতে হবে।’ 

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগাম যে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন বা ভোট চাচ্ছেন বলে বিএনপি অভিযোগ করেছে সেই বিষয়ে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে ইসি।

 



:        
   আপনার মতামত দিন
     রাজনীতি
পথশিশুদের খাইয়ে প্রেম উদযাপন, ভাইরাল প্রেমিক যুগল
................................................................
কে এই সুন্দরী ললনা?
................................................................
নাচো মন ফাগুনের অগ্নিধারায়
................................................................
ভালোবাসা দিবসে যা দেয়া যেতে পারে
................................................................
যে কারণে নারীদের কাছে বেশি আকর্ষণীয় বিবাহিত পুরুষ
................................................................