শেয়ার করুন
Share Button
   বিনোদন
  এ বছর মানুষের অনুরোধে কাজ করে দেওয়ার বিষয়ে সতর্ক থাকব: ডিজে সনিকা
  6, January, 2018, 7:26:21:PM

ডিস্ক জকি তথা ডিজে। সংগীতের এই ব্যতিক্রমী ধারাটি বাংলাদেশে প্রবেশ করেছিল ১৯৮০ সালে। তবে বাংলাদেশ এ ধারায় সক্রিয় হয়েছে ২০০৬ সালে। এ তথ্যগুলো দিয়েছিলেন দেশের অন্যতম নারী ডিজে মারজিয়া কবির সনিকা। সেটি গত বছর নভেম্বর নাগাদ। গত নভেম্বর মাসেই বাংলাদেশে ডিজে শিল্পে নারীদের অংশগ্রহণ আরও বৃদ্ধি করতে একটি সংগঠন তৈরি করেন শব্দকন্যা সনিকা। ১৮ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে সংগঠন নির্মাণের তাগিদে একটি সভাও সম্পন্ন করেছিলেন তিনি।

দেশের ডিজে শিল্পের প্রসারের পথে যে সমস্ত বিষয়াদিতে এখনও ঘাটতি রয়েছে, সেই প্রসঙ্গে বিএনপিপি নিউজের সঙ্গে আলাপকালে সনিকা জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশে ডিজেয়িং-এ এখনও দক্ষ শিক্ষকের অভাব রয়েছে। বাংলাদেশ থেকে প্রাথমিক জ্ঞান নিয়ে বিদেশে গিয়ে ডিজে সম্পর্কে শিখে আসতে হচ্ছে ডিজে শিল্পে আগ্রহীদের। সনিকা যেই পরিকল্পপনা করেছিলেন, তন্মধ্যে একটি ছিল বিদেশ থেকে বাংলাদেশে ডিজে ফ্রেঞ্চাইজি আসা।

তারপর তো কালের নিয়ম অনুযায়ী ঝরে গেল আরেকটি বছর, বিদায় নিল ২০১৭ সাল, এলো ২০১৮। এ বছর সনিকা প্রত্যাশা করছেন ডিজে নিয়ে কিছু ওয়ার্কশপ করার। নব্বই দশকের জনপ্রিয় ডিজে ডিউকের সঙ্গে মিলে এ বছর ডিজে মিউজিকের জন্য নতুন কিছু করার পরিকল্পনা আছে তার। খুব শিগগিরই তার ভক্তরা জানতে পারবে নতুন সেই প্রকল্পের কথা। এসব কথা প্রিয়.কমকে জানিয়েছেন ডিজে সনিকা নিজেই।

নতুন বছরে তার কাছে বিএনপিপি নিউজের প্রশ্ন ছিল, এ বছর নিজের কোন অভ্যাসটা পরিবর্তন করতে চান তিনি? সনিকা জানিয়েছেন, মানুষের অনুরোধে কাজ করে দেওয়ার বিষয়ে সতর্ক থাকবেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে প্রিয়.কমকে দেওয়া মারজিয়া কবির সনিকার বক্তব্য,  `নতুন বছরে আরও বেশি প্রফেশনাল হবো। অন্যান্য বছর যেমন মানুষ বললেই অনুরোধের কাজ করে দিতাম, এ বছর থেকে সে ব্যাপারগুলো সম্পর্কে সতর্ক থাকব, আরও বেশি পেশাদারী আচরণ করবএটা আমার নিজের কাছে আমার প্রতিজ্ঞা`

উল্লেখ্য, ডিজে সনিকাকে সবাই বাংলাদেশের অন্যতম ডিস্ক জকি হিসেবে চিনলেও, তার রয়েছে আরও কিছু পরিচয়। তিনি টেলিভিশনে উপস্থাপনা ছাড়াও বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করেছেন।



:        
   আপনার মতামত দিন
     বিনোদন