শেয়ার করুন
Share Button
   ধর্ম
  মাওলানা সাদ বিষয়ে উত্তরার পরামর্শ সভায় আলেমদের ৩ সিদ্ধান্ত
  11, November, 2017, 5:20:55:PM

তাবলিগে চলমান সঙ্কট নিরসনে আয়োজিত রাজধানী উওরার পরামর্শ সভায় শীর্ষ ওলামায়ে কেরাম অংশ নেন, এতে সবার কণ্ঠেই ছিলো ঐক্যের সুর।

শনিবার (১১ নভেম্বর) সকালে শুরু হওয়া এ অনুষ্ঠানে বিভিন্ন স্থান থেকে আলেমগণ এসেছিলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমাদ শফী’র উপস্থিত হওয়ার কথা থাকলেও শারীরিক অসুস্থতার কারণে তিনি উপস্থিত হতে পারেননি।

তবে মাওলানা আনাস মাদানী সভায় আল্লামা আহমদ শফীর বার্তা পেশ করেন।

মাওলানা আনাস মাদানী বলেন, আব্বাজানের একান্ত আগ্রহ ছিল এ মজলিসে উপস্থিত হওয়া। তবে তিনি বলেছেন, ‘যে বিষয় নিয়ে আজ আমরা উপস্থিত হয়েছি, মাওলানা সাদের বক্তব্য প্রত্যাহার না করা ব্যতীত এবং দারুল উলুমের আস্থা ফিরে না আসা পর্যন্ত তাকে যেন বাংলাদেশে আসতে না দেয়া হয়। সে ক্ষেত্রে ওলামায়ে কেরামকে সোচ্চার থাকতে বলেন।

সভাপতির ভাষণে হেফাজতে ইসলামের মহা সচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, বাংলাদেশে তাবলীগ চললে মাওলানা ইলিয়াসের তাবলীগই চলবে। কোন ব্যক্তির তাবলীগকে এই বাংলার জামিনে চলতে দেওয়া হবে না!!

এসময় তিনি যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় ওলামায়ে কেরামকে প্রস্তুত থাকার আহবান জানান।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহাসচিব এবং হেফাজত ঢাকা মহানগরীর সভাপতি আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী বলেন, তাফাক্কুহ ফিদ্দিন না থাকা এবং ওলামায়ে কেরাম উদাসীনতাই ফেৎনার জন্ম দেয়। তাই চলমান সঙ্কট নিরসন করা ওলামসাায়ে কেরামের দায়িত্ব।

মাদরাসা নূরে মদিনার মুহাতিমম আল্লামা নুরুল ইসলাম ওলীপুরী তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, তাবলিগে বাতিলের গুপ্তচর চেপে বসেছে। যারা লাঠিয়ালের মাধ্যমে তাদের কর্তৃত্ব টিকিয়ে রাখতে চায়।

একপর্যায়ে তিনি মাওলানা সাদকে বাতিলের গুপ্তচর হিসেবে আখ্যায়িত করে তাকে গোটা বিশ্বের জন্য অবাঞ্চিত ঘোষণা করেন।

দৈনিক ইনকিলাবের সহ সম্পাদক মাওলানা ওবাদুর রহমান খান নদবী বলেন, একটা বিষয় আমাদের স্পষ্ট হতে হবে, যে ওয়ারাছাতুল আম্বিয়া হিসেবে, উম্মতের প্রতিটি বিষয়ে ওলামাদের নাক গলানো কর্তব্য। এক্ষেত্রে কারো কোন ধরনের কথায় ভ্রুক্ষেপ করা হবে না।

আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন মাওলানা সাজিদুর রহমান, মুফতি মিযানুর রহমান সাঈদ, মাওলানা মাহফুজুল হক, মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীব, মুফতি কেফায়াতুল্লাহ আজহারীসহ প্রমুখ আলেমে দ্বীন ও নেতৃবৃন্দ।

আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ সভায় উপস্থিত হতে না পারলেও তার লিখিত বক্তব্য পাঠ করে শোনানো হয়।

সর্বশেষ অনুষ্ঠানের ঘোষণাপত্র পাঠ করেন গাজীপুরের শীর্ষ আলেম দারুল উলূম টঙ্গির মুহতামিম, মুফতী মাসউদুল করীম।

ঘোষণাপত্রে ৩ টি বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়, ১.মাওলানা সাদের সকল বিতর্কিত বিষয়ের বিরুদ্ধে দারুল উলুম দেওবন্দের যে অবস্থান, বাংলাদেশের ওলামা তার সাথে একমত!

২. চলমান পরিস্থিতে মাওলানা সাদ বাংলাদেশে আগমন করলে এদেশের দ্বীনি অঙ্গনে ফেৎনা সৃষ্টির আশংকায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এবং ওলামায়ে কেরাম কর্তৃক গৃহিত পদক্ষেপকে এ মাহফিলের পক্ষ থেকে সাধুবাদ জানানো হচ্ছে এবং সকল ক্ষেত্রে দ্রুত কার্যকর করার অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

৩. সারা বিশ্বে প্রকাশমান এ সঙ্কটে মাওলানা সাদ এর ব্যাপারে দারুল উলূম দেওবন্দ, সাহারানপুর এবং আল্লামা আহমদ শফীসহ সারা বিশ্বের সকল ফতওয়া বিভাগ আস্থা প্রকাশ করার পূর্ব পর্যন্ত তাকে তাবলিগি কোন কাজে বাংলাদেশে আসতে দেওয়া হবে না।

একই সঙ্গে এক্ষেত্রে তাকে তার ভুলের জন্য প্রকাশ্য স্বীকারোক্তিমূলক ক্ষমা প্রার্থনা করতে হবে এবং তার অনুসারীদের নিয়ে এ গোমরাহীর পথ ছেড়ে আসতে হবে!

পরিশেষে আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমীর দোয়ার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি হয়!!

 



:        
   আপনার মতামত দিন